বিতর্কিত সেই এসআই কে প্রত্যাহার

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি
টাইম নিউজ বিডি,
১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১০:০৬:২০
#

কক্সবাজারের পেকুয়ায় গা ঘেঁষে গাড়ি চালিয়ে যাওয়ার অপরাধে পিতার বয়সী এক ট্রাক চালককে নাকে খত (মাটিতে সেজদা) দিতে বাধ্য করে অভিনব শান্তি দেয়ার অপরাধে বির্তকিত সেই এসআই তৌহিদুল ইসলামকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। তাকে গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় পেকুয়া থানা থেকে প্রত্যাহার করে কক্সবাজার পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়েছে।


চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জিয়া মোহাম্মদ মোস্তাফিজ ভূঁইয়া এ খবর নিশ্চিত করে বলেন, মীর কাশেম নামের এক ট্রাক চালককে প্রকাশ্যে রাস্তার ওপর কানে ধরে সিজদা দেওয়ার অভিযোগে কক্সবাজারের পুলিশ সুপার ড. এ কে এম ইকবাল হোসেনের নির্দেশে এসআই তৌহিদুল ইসলামকে ক্লোজড করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে তাকে তদন্ত সাপেক্ষে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়ার জন্য কক্সবাজার পুলিশ লাইনে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে।


কক্সবাজারের পুলিশ সুপার ড. এ কে এম ইকবাল হোসেন বলেন, ‘আমি চট্টগ্রামে একটি মিটিং আছি। নিউজটি অনলাইনে দেখার পর সাথে সাথে এসআই তৌহিদুলকে ক্লোজড করার নির্দেশ দিয়েছি। পাশাপাশি চকরিয়া সার্কেলের সিনিয়র পুলিশ সুপার (এএসপি) কাজী মতিউল ইসলামকে প্রধান করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করারও নির্দেশ দিয়েছি। ওই তদন্ত কমিটিকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছে। সেই রিপোর্টে যদি ওই পুলিশ কর্মকর্তা অভিযুক্ত হয় তাকে বরখাস্ত করা হবে।


উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার বেলা ১২টার দিকে কক্সবাজারের পেকুয়া সদর ইউনিয়নের চৌমুহনী স্টেশনে মীর কাশেম নামের এক ট্রাক চালককে অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে প্রকাশ্যে কানে ধরে সিজদা দিতে বাধ্য করায় এসআই তৌহিদুল ইসলাম। তিনি ট্রাক চালকের বিরুদ্ধে তার গায়ে গাড়ি লাগার অভিযোগ করেন। পরে এই ঘটনা ছবিসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হলে সর্বত্র নিন্দার ঝড় উঠে এবং অভিযুক্ত এসআই’র শাস্তির দাবী করেন।
চালক মীর কাশেম কক্সবাজার সদরের নাজিরার টেক এলাকার নুরুল আলমের ছেলে। এ ঘটনায় পুরো উপজেলায় সমালোচনার ঝড় বইছে।


ভুক্তভোগী মীর কাশেম বলেন, ‘আমি কক্সবাজার থেকে মালবোঝাই ট্রাক নিয়ে চট্টগ্রামের উদ্দ্যেশে যাচ্ছিলাম। এ সময় পথে পেকুয়া চৌমুহনী এলাকায় আমাকে পেছন থেকে ডাক দিয়ে থামায় এক লোক। কাছে আসতে দেখলাম তিনি পুলিশের লোক। পুলিশ দেখে আমি গাড়ি থেকে নামতেই তার গায়ে গাড়ি লাগার অজুহাতে আমাকে কান ধরে সিজদার নির্দেশ দেয়। এতে আমি আপত্তি করলে তিনি অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে আমাকে শত শত মানুষের সামনে কান ধরিয়ে রাস্তার মাঝখানে মাটিতে নাকে খত দিতে (সিজদা করা) বাধ্য করে।


 



জেড/মাসুম


 

Print